জাতির পিতা ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে জাতিকে স্বাধীনতা অর্জনে উদ্বুদ্ধ করেন

আকাশছোঁয়া ডেস্ক : মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেছেন, জাতির পিতা ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে জাতিকে স্বাধীনতা অর্জনে উদ্বুদ্ধ করেন।

প্রতিমন্ত্রী ১৭ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার গাজীপুরের জিরানীতে শহিদ শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব প্রশিক্ষণ একাডেমিতে নবনির্মিত শহিদ মিনারের উদ্বোধন কালে এ কথা বলেন। খবর এবং ছবি তথ্য অধিদফতর থেকে সরবরাহকৃত

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গমাতা শহিদ শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব প্রশিক্ষণ একাডেমিতে শহিদ মিনার নির্মাণ করতে পেরে আমরা গর্বিত। বঙ্গমাতা ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা অর্জনের প্রতিটি পদক্ষেপে জাতির পিতার নেপথ্য শক্তি ও বিশ্বস্ত সহচর হয়ে ছিলেন। তিনি ছিলেন সত্যিকারের বড় গেরিলা যোদ্ধা। দেশের জন্য বঙ্গমাতার যে অবদান, সে ঋণ কখনো শোধ হবার নয়।

প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা আরো বলেন, জাতির পিতা সদ্যস্বাধীন দেশে নারীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য ১৯৭২ সালে নারী পুনর্বাসন বোর্ড গঠন করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় নির্যাতিত নারীদের চিকিৎসা ও পুনর্বাসন করেন। পুনর্বাসন, নারীর অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বঙ্গবন্ধু গৃহীত সকল কাজে বঙ্গমাতা অসাধারণ ভূমিকা রাখেন। তিনি বলেন, মহিয়সী নারী শহিদ শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব  প্রশিক্ষণ একাডেমি বিভিন্ন ট্রেডে নারীদের প্রশিক্ষণ প্রদান করে তাদের ক্ষমতায়ন করছে। যার ফলে নারীরা আর্থিকভাবে স্বচ্ছলতা অর্জন করছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা বলেন, কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ২০৪১ সালের মধ্যে কর্মস্থলে নারী পুরুষের উপস্থিতি ৫০:৫০ এ উন্নীত করার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় কাজ করে যাচ্ছে।

মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফরিদা পারভীনের সভাপতিত্বে এ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ মুহিবুজ্জামান এবং পরিচালক মনোয়ারা ইশরাতসহ মন্ত্রণালয়, দপ্তর ও সংস্থার বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।

পরে প্রতিমন্ত্রী নবনির্মিত শহিদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং শহিদ মিনারের পাশে বৃক্ষ রোপণ করেন।

শেয়ার করুন :