‘প্রভুত্বের নয়, বাংলাদেশ সকল রাষ্ট্রের সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্কে বিশ্বাসী’

– জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান

আকাশছোঁয়া ডেস্ক :জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. মশিউর রহমান বলেছেন,4 ‘বাংলাদেশের শক্তি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তাঁর আদর্শ। এ শক্তি ও আদর্শ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছি, আরও এগিয়ে যাবো। এতে কোন সন্দেহ নেই। আমাদের কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না-বঙ্গবন্ধুর এই বাণী আমাদের এগিয়ে চলার পথে পাথেয় জোগাবে।’

শনিবার ১৮ডিসেম্বর  রাজধানীর সিরডাপ অডিটোরিয়ামে বিবার্তা২৪ডটনেট ও জাগরণ টিভি আয়োজিত ‘রাজনীতির ভিতর বাহির ও ষড়যন্ত্রের নিষেধাজ্ঞা’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন উপাচার্য।

 উপাচার্য ড. মশিউর রহমান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ সমার্থক। বঙ্গবন্ধুকে বাদ দিয়ে বাংলাদেশ কল্পনা করা যায় না। বঙ্গবন্ধু ছোট বেলা থেকে প্রচুর পড়াশোনা করতেন এবং গভীরভাবে বিশ্বব্যবস্থা বুঝতেন। এজন্য বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, সারাবিশ্ব দুইভাগে বিভক্ত। একদিকে শাসক, অন্যদিকে শোষিত। আমি শোষিতের পক্ষে। এর মধ্যে যে দর্শন আছে। এটি কোন রাজনৈতিক বক্তব্য ছিল, এটি ছিল বঙ্গবন্ধুর জীবনব্যাপী আরাধনার একদম নির্যাস।’

পুঁজিবাদী বিশ্বব্যবস্থার চিত্র তুলে ধরে উপাচার্য বলেন, ‘মূলত যুক্তরাষ্ট্র বাজার নিয়ন্ত্রিত ও পুঁজি নিয়ন্ত্রিত একটি রাষ্ট্র। তারা বঙ্গবন্ধুকে না বুঝে, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ সমর্থক সেটা না বুঝার কারণেই নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু সংবিধানে যে মূলনীতি যুক্ত করেছেন তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজার অর্থনীতির একদম বিপরীত। এটি বুঝেই তারা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। সুতরাং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে অন্যান্য দেশের ন্যায় কূটনৈতিক সম্পর্ক থাকবে। কারণ বাংলাদেশ প্রভুত্বের নয়, সকল রাষ্ট্রের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কে বিশ্বাসী।’

উপাচার্য আরও বলেন, ‘বাংলাদেশে আজকের সমাজব্যবস্থার মধ্যে ঠিক একাত্তরে যুদ্ধাপরাধী, রাজাকার, আল-শামস, আল-বদরের মতো কিছু মানুষ রয়েছে। যারা ক্ষুদ্র ঋণের নামে, মাইক্রোক্রেডিটের নামে নোবেল জয় করেছেন। একেবারে গ্রামীণ পর্যায়ে ক্ষুদ্র ঋণের নামে বাজার আধিপত্য কায়েম করেছেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, অমর্ত্য সেনের নোবেল প্রাইজ আর ড. ইউনুসের নোবেল প্রাইজ এক নয়। ড. ইউনূস ও তার প্রতিষ্ঠানকে কখনো বাংলাদেশের জাতীয় দিবসে শহীদ মিনারে, স্মৃতিসৌধে যেতে দেখিনি। ১৯৭১ সালে যারা রাজনীতির দালাল ছিল তারাই আজ বাজার অর্থনীতি তথা পুঁজিবাদীর দালাল।’

জাগরণ আইপি টিভি’র প্রধান সম্পাদক এফএম শাহীনের সঞ্চালনায় ও বিবার্তা২৪ডটনেট সম্পাদক বাণী ইয়াসমিন হাসির সভাপতিত্বে গোলটেবিল আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সাবেক প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেন প্রমুখ। আলোচনা অনুষ্ঠানে কী-নোট উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার ফারজানা মাহমুদ।

শেয়ার করুন :