যতক্ষণ নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস আছে জয় বাংলার গান গাইব

আকাশছোঁয়া ডেস্ক : তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মোঃ মুরাদ হাসান বলেছেন, পৃথিবীর নির্যাতিত, নিপীড়িত, শোষিত, বঞ্চিত, মুক্তিকামী মানুষের আজন্মের অনুপ্রেরণা ছিলেন জাতির পিতা। যিনি বাঙালি জাতিকে স্বাধীন সার্বভৌম জাতি হিসেবে সংজ্ঞায়িত করেছেন, বাঙালি জাতিকে হাজার বছরের পরাধীনতার শৃঙ্খল ভেঙে স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন। জাতির পিতার জয় বাংলা স্লোগানে অনুপ্রাণিত হয়েই ৭ কোটি নিরস্ত্র বাঙালি যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। তাই যতক্ষণ নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস আছে জয় বাংলার গান গাইব।

৪ ডিসেম্বর জামালপুরের বকশিগঞ্জ উপজেলাধীন ‘কামালপুর হানাদারমুক্ত দিবস’ উপলক্ষে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। খবর এবং ছবি তথ্য অধিদফতর থেকে সরবরাহকৃত

তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ধর্ম নিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়। এ দেশে সবারই পূর্ণ ধর্মীয় অধিকার রয়েছে। কেউ কাউকে এতে বাধা দিতে পারবে না। তবে ধর্ম নিয়ে রাজনীতি বা ধর্ম নিয়ে ব্যবসা এ দেশে চলবে না। ধর্মকে পুঁজি করে যারা রাজনীতি করে, তাদের ধর্মপ্রীতি নিতান্তই লোক দেখানো। ধর্মীয় অনুশাসনকে এরা কখনোই অন্তর দিয়ে গ্রহণ করেনা এবং অনুশাসন মেনে চলে না।

প্রতিমন্ত্রী মুরাদ আরো বলেন, ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাতির পিতার নেতৃত্বে নৌকা প্রতীকে ৬৪ শতাংশ ভোট পেয়েছিল। বাকি ৩৬ শতাংশ ভোটার ছিল আওয়ামী লীগের বাইরে, অর্থাৎ রাজাকার-দালাল। সেই রাজাকারের উত্তরসূরিরা এখনো এই বাংলায় বসবাস করছে এবং নিত্যনতুন ষড়যন্ত্রে করছে;তাদের এই ষড়যন্ত্রে আমাদেরকেই রুখে দিতে হবে। ডা. মুরাদ হাসানের মতো লক্ষ কোটি সন্তান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য রাজপথে জীবন উৎসর্গ করতে পিছপা হবে না।

বৃহত্তর ময়মনসিংহ সমন্বয় পরিষদ এর সভাপতি মোঃ আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, বক্তব্য রাখেন সাবেক মন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সিনিয়র সচিব ড. জাফর উদ্দীন।

 

শেয়ার করুন :