৩রা ডিসেম্বর গণফোরাম এর ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলকে সামনে রেখে সংবাদ সম্মেলন

আকাশছোঁয়া ডেস্ক : গণফোরাম এর ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল উপলক্ষে ২৭ নভেম্বর শনিবার ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব সিনিয়র এডভোকেট সুব্রত চৌধুরী। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা মোহসীন মন্টু, অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদ, সিনিয়র এডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, এডভোকেট মহসীন রশিদ ও এডভোকেট মহিউদ্দিন আব্দুল কাদের।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে গণফোরাম এর সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা মোহসীন মন্টু বলেন, আমরা দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ ও কার্যকর গণতন্ত্র চাই। সেই লক্ষে গণফোরাম তার সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এই সরকার দুর্নীতিবাজ ও কালো-বাজারীদের সাথে আতাত করে দেশ পরিচালনা করছে। আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ বিনির্মান করতে চাই। নতুন প্রজন্মকে সংগঠিত করে দুর্নীতিবাজ, অগণতান্ত্রিক ও ফ্যাসিবাদী এ সরকারকে উচ্ছেদ করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে চাই।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা ড. কামাল হোসেন সহ সকল নেতা-কর্মীকে কাউন্সিলে আমন্ত্রন জানিয়েছি। গণফোরাম গণমানুষের দল। গণফোরাম দেশের সকল পর্যায়ে, দলের অভ্যন্তরে সাংগঠনিক ও সিদ্ধাস্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে গণতান্ত্রিক নিয়ম নীতি প্রয়োগ করে। আমরা গণফোরামের নেতাকর্মীদেরকে সকল দ্বন্দ্ব বিবেধ ভূলে ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল সফল করার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি। আগামী কাউন্সিলে গণফোরামের যেসমস্ত নেতাকর্মী সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করবে, কাউন্সিলে উপস্থিত থাকবে এবং কাউন্সিল পরবর্তি কমিটির সাথে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবে শুধুমাত্র তারাই গণফোরামের প্রতিনিধিত্ব করার যোগ্যতা রাখে।

এক প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক ড. আবু সাইয়িদ বলেন, জাতীর এই ক্রান্তিলগ্নে আশু করণীয় হিসেবে দেশের সার্বিক গণঅধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে রাষ্ট্রীয় চার মূলনীতিতে বিশ^াসী সকল দল এবং শ্রেণী-পেশার মানুষকে নিয়ে একটি গ্রান্ড ন্যাশনাল কনফারেন্স এর মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনার বৈপ্লবিক পরিবর্তন ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে দৃঢ় পদক্ষেপ নিতে উদ্যোগী ভূমিকা পালন করব। সরকার পরিচালনায় রাষ্ট্রিয় চার নীতি কার্যকারিতা পরিলক্ষিত হচ্ছে না। সাম্প্রদায়িক শক্তির সাথে আপোষ করে শিক্ষা ব্যাবস্থাকে পরিবর্তন করা হচ্ছে। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া বিভিন্ন সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসি ঘটনার কোন বিচার হচ্ছে না। যার কারনে সমাজে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য বৃদ্ধি পাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, আইন মানুষের কল্যানের জন্য। আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে সবসময়ই সতর্ক থাকতে হয়। নিরাপরাধ কোন ব্যাক্তি যাতে অকারনে সাজা প্রাপ্ত না হয়। বিভিন্ন ক্ষেত্রে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা আইনের অপব্যাবহার করছে। আমরা মানবিক কারনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার জন্য বিদেশে প্রেরনের আহ্বান জানাচ্ছি।

সভায় আরও বক্তব্য রাখেন গণফোরামের মুখপাত্র, সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব সিনিয়র এডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, এডভোকেট জগলুল হায়দার আফ্রিক, এডভোকেট মোহসীন রশিদ, মহিউদ্দিন আব্দুল কাদের, মেজর (অবঃ) আসাদুজ্জামান বীর প্রতীক, আইয়ুব খান ফারুক, আতাউর রহমান, এডভোকেট মোঃ হেলাল উদ্দিন, লতিফুল বারী হামিম, বিশ^জীৎ গাঙ্গুলী প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলন পরবর্তিতে ঢাকা জেলা কর্মী সম্মেলন ইকবাল জামাল জুয়েল এর সভাপতিত্বে এবং মোঃ রওশন ইয়াজদানীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়। কর্মী সম্মেলনে ইকবাল জামাল জুয়েল কে আহ্বায়ক ও মো: হানিফ মিয়াকে সদস্য সচিব করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট ঢাকা জেলা আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হয় এবং পরবর্তিতে জান্নাতুল মাওয়াকে আহ্বায়ক এবং হাসিনা আক্তার সুমাকে সদস্য সচিব করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট ঢাকা মহানগর মহিলা গণফোরামের কমিটি গঠিত হয়।

 

শেয়ার করুন :