চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের স্মরণে সভা অনুষ্ঠিত

আকাশছোঁয়া ডেস্ক : চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে ২ জানুয়ারি শনিবার চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয় জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন হলে।

চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ স্মৃতি পরিষদের সভাপতি কবি প্রফেসর আবদুল হাই শিকদারের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। স্মৃতি পরিষদের সদস্য সচিব সহিদুল ইসলাম বাবলুর সঞ্চলনায় স্মরণ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা.এ জেড এম জাহিদ হাসান, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, জহুরুল ইসলাম সাহাজাদা মিয়া, যুগ্ন-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, মহিলা দলের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খান, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের মেয়ে নায়াব ইউসুফ, কৃষকদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য লায়ন মিয়া আনোয়ার ও কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, গোটা পৃথিবী এখন একটা চরম দুঃসময় কাটাচ্ছে। একদিকে মহামারির আগ্রাসন আরেকদিকে গণতন্ত্রের মৃত্যুর দিকে চলে যাচ্ছে। কর্তৃত্ববাদ, একনায়কতন্ত্র বেড়ে উঠছে, সেই সঙ্গে দাম্ভিকতা-অহংকার, সাধারণ মানুষকে অবজ্ঞা যেন এই সময়কার রাজনীতির একটা অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে আমরা যে স্বপ্ন দেখেছিলাম, একটা গণতান্ত্রিক দেশ, সমাজ তৈরি করার। বার বার আমাদের স্বপ্ন ভেঙ্গে গেছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরেও এ কথা বুক ফুলিয়ে বলতে পারছি না, আমরা স্বাধীন দেশে বাস করছি, আমাদের এখানে গণতন্ত্র আছে। এর চেয়ে দুর্ভাগ্য আর কি হতে পারে। এখানে সরকার থেকে শুরু করে সব আছে, কিন্তু মানুষের অধিকার নেই।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, তিনি (ওবায়দুল কাদের) বলেছেন বিএনপির ভোট ডাকাতির রেকর্ড নাকি কেউ ভাঙতে পারবে না। আপনি কি ভাঙতে চান? রেকর্ড ভাঙতে চায় বলেই ২০১৮ সালের নির্বাচনের আগের রাতে চরম ভোটডাকাতি করেছে। এ কোন সমাজে আসলাম আমরা যেখানে রাজনীতিবিদরা বলছেন যে তারা ভোট ডাকাতির রেকর্ড ভাঙতে চান।

চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখছেন মহিলা দলের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের কন্যা নায়াব ইউসুফ।

মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কামাল ইবনে ইউসুফের কন্যা চৌধুরী নায়াব ইউসুফ বলেন, ‘ জনগন আমাকে রাজনীতিতে স্বাগত জানিয়েছে সেটা হলো আমার আব্বার প্রতি তাদের সম্মান এবং ভালবাসার প্রতিফলন।’ পিতার প্রতি সবার নিকট দোয়া কমনা করে তিনি বলেন, ‘আমার পিতা ছিলেন বড় মনের একজন মানুষ। তিনি ছিলেন ধৈর্য্যশীল একজন মানুষ, এটাই আমার বাবার থেকে শিক্ষনীয়। তিনি সবাইকে ভালবাসা এবং সম্মানের চোখে দেখতেন। আমিও যেন সেরকমই থাকতে পারি।’

শেয়ার করুন :