দলের ভেতর মুক্তিযোদ্ধাদের পর্যাপ্ত সম্মান দেয়া হচ্ছে না

আকাশছোঁয়া ডেস্ক : দলের একটি অংশ বিএনপিতে মুক্তিযোদ্ধাদের কোনঠাসা করে রাখার ষড়যন্ত্র করছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজ উদ্দিন আহমদ। শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে  কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব দিয়ে নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন  তিনি। মেজর হাফিজ বলেন, দলের ভেতর মুক্তিযোদ্ধাদের পর্যাপ্ত সম্মান দেয়া হচ্ছে না।

শনিবার, দলটির মহাসচিব বরাবর নোটিশের জবাব দেন তিনি। পদত্যাগের কোন চিন্তা নয় উলে­খ করে দলীয় সিদ্ধান্তের উপর আস্থা রাখার কথা জানান বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান। কখনো দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ হয় এমন কোন কাজ এবং নেতাদের বিরুদ্ধে কটু কথা বলেননি বলেও দাবি করেন মেজর হাফিজ।

তিনি বলেন, ‘বিএনপিতে যোগদানের পূর্বেই আমি তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলাম। ১৯৯১ সালে স্বতন্ত্র প্রার্থীরূপে সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে বিএনপিতে যোগদান করেছিলাম। আমি বিগত ২২ বছর ধরে দলের অন্যতম ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসছি। দলের ভাইস চেয়ারম্যানকে একজন যুগ্ম মহাসচিব এমন কঠিন, আক্রমণাত্মক ভাষায় কৈফিয়ত তলব করায় অত্যন্ত অপমানিত বোধ করেছি। এখানে প্রটোকল ও সৌজন্যের ব্যত্যয় ঘটেছে। ব্যক্তি রুহুল কবির রিজভী একজন ভদ্র, নিষ্ঠাবান ও ত্যাগী নেতা, তার সঙ্গে আমার সুসম্পর্ক রয়েছে, তার কাছ থেকে এ ধরনের চিঠি আশা করিনি।

শোকজ নোটিশের অভিযোগের জবাবে হাফিজ উদ্দিন বলেন, দলীয় নেতৃত্বের সিদ্ধান্তের প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করেই পত্রে বর্ণিত অভিযোগ সম্পর্কে আমার নিম্নরূপ বক্তব্য পেশ করছি। আমাকে কখনো বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের দায়িত্ব দেয়া হয়নি। জাতীয়তাবাদী কৃষকদলের কেন্দ্রীয় মনিটরিং কমিটির আহ্বায়ক পদের অফার অসুস্থতার জন্য গ্রহণ করতে পারিনি। আমার বর্তমান বয়স ৭৬ বছর ২ মাস, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি কিংবা স্থায়ী কমিটিতে আমার চাইতে বয়স্ক ব্যক্তির সংখ্যা ৪ এর অধিক হবে না বলেই আমার ধারনা।

তিনি আরো বলেন, বিগত এক বছরে আমি জাতীয় প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত ৬টি সভায় অংশগ্রহণ করেছি, আয়োজক জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল ২টি, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি ২টি, বিএনপি ঘরানাভুক্ত সংগঠন ১টি। দেশের খ্যাতনামা মুক্তিযোদ্ধারা এই সভাসমূহে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

অসৎ উদ্দেশ্যে বিএনপির বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করেছেন এমন অভিযোগের জবাবে বলেন, এটি একেবারেই অসত্য ঢালাও মন্তব্য। বিগত ১২ই ডিসেম্বর প্রেস ক্লাব অডিটোরিয়ামে রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক বিমান বাহিনী প্রধানসহ অবসরপ্রাপ্ত সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তাদের এক সভায় আমি শেখ হাসিনাকে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারে অধীনে নতুন নির্বাচন দেবার জন্য দাবি জানিয়েছি। প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় আমি দলীয় স্বার্থ ও শৃঙ্খলাবিরোধী কোন বক্তব্য দেইনি।

 

শেয়ার করুন :